বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে থাকা বাঙালির নিজস্ব মঞ্চ

মহাকাশে হরি চরন

28 November, 2020 - By Bangla WorldWide

গানের ভেতর দিয়ে

27 November, 2020 - 06:05:00 PM

ছেলেবেলায় আমাদের মনোজাগতিক গঠন প্রক্রিয়ার অন্যতম পুঁজি ছিল একটা শত ব্যবহারে নরমহয়ে আসা সঞ্চয়িতা l বাবার মাথার কাছে নিত্যদিন এই একখানা বই নির্বিবাদে রাজত্ব করেছে l আমাদের আনন্দের মহার্ঘ্য উদযাপন এই বইয়ের ভেতর দিয়ে শুরু হত, আমাদের বেদনার ভার এইবইয়ের মলিন পাতাগুলোর ভেতর আরাম খুঁজে নিত l আর আমাদের মায়ের অশুদ্ধ সুরে গাওয়া রবীন্দ্রসঙ্গীতের ভেতর দিয়েই আমাদের রবীন্দ্রনাথের গানের সাথে গাঁটছড়া বাঁধা l জলের মত কলকলিয়েআমার জীবনে এসেছিলেন রবি ঠাকুর l আমি পাইলাম,ইহাকে পাইলামের মত সহজ প্রাপ্তি যোগেরউত্তেজনায় বুঝিনি পাওয়া অত সহজ নয় যতটা সহজ ভেবেছি l

read more

বড়মামার লেখা বই নোবেল পুরস্কারও পেতে পারত

26 November, 2020 - 04:30:00 PM

আমাদের বড় মামা সঞ্জীব দত্ত প্রায় বাইশ বছর হল গত হয়েছেন। বিখ্যাত হওয়া তাঁর উচিত ছিল, কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে তা ঘটেনি। বড়মামার ডাকনাম ছিল খ্যাপু। সে আমলে কুমিল্লা থেকে স্কটিশ চার্চ কলেজে পড়তে আসেন। তিনি বরাবরই ভাল ছাত্র ছিলেন। শুধু তাই নয়, সুদর্শন চেহারা ছিল তাঁর। ইংরেজি সাহিত্যে দখল ছিল অতুলনীয়। অজস্র ইংরেজি কবিতাও লিখেছেন তিনি- যা পরে কবিতার বই আকারে প্রকাশিত হয়েছিল।

read more

কলকাতাতেও এমন আনন্দ হত না

24 November, 2020 - 12:15:00 PM

জাম্বিয়ায় বাস করছি ৪০ বছর। আর জাম্বিয়ায় দুর্গাপুজোর বয়সও তাই। ১৯৮০ সালে স্বামী আর ছেলেকে নিয়ে জাম্বিয়ার রাজধানী লুসাকাতে এলাম। আর সেই বছরই সেখানে হৈ হৈ করে শুরু হল দুর্গাপুজো। আমরা জুন মাসের ১০ তারিখে লুসাকা পৌঁছাই। এই মাসের শেষ দিকেই বেঙ্গলি অ্যাসোসিয়েশন সভায় ঠিক হল সে বছর থেকে শ্রী রামকৃষ্ণ বেদান্ত সেন্টারে দুর্গা পূজা করা হবে।

read more

মোরা মিলেছি আজ মায়ের ডাকে (দ্বিতীয় পর্ব)

23 November, 2020 - 12:03:00 PM

দুর্গাপুজোর অন্যতম আকর্ষণ হলো সংগীত। দুইশ বছর আগে কালীভক্ত রামপ্রসাদ সেনের জন্ম। হ্যাঁ সেই রামপ্রসাদ, যিনি বাঙালির রন্দ্রে রন্দ্রে ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন মধুমাখা রামপ্রসাদী সুর। যে সুরে মুগধ হয়ে আধুনিক বাংলা সাহিত্যের দিকপাল রবীন্দ্রনাথ এবং নজরুল দুজনেই রামপ্রসাদী সুরে মাতৃসংগীত রচনা করেছেন। ভাবতেই অবাক লাগে দুইশ বছর আগে রামপ্রসাদ যে বাণীতে সুরারোপ করে গান লিখেছেন তা আজকের সময়েও বড্ড মানিয়ে যায়। বিষয় বাসনায় মত্ত হয়ে লাইন চ্যুত রামপ্রসাদ বলছেন

read more

মোরা মিলেছি আজ মায়ের ডাকে (প্রথম পর্ব)

19 November, 2020 - 12:46:00 PM

বঙ্গে দেবী শারদীয়া এসেছেন আবারো । চারপাশে দুঃখ, জরা, ব্যাধি, প্রেম, অপ্রেম, পাওয়া না পাওয়ার হুতাশন। তবুও এক লহমায় যেনো আকাশের শাদা মেঘের ভেলা, শাদা কাশফুল আর শিউলি ফুলের শুভ্রতায় ঢেকে যায় সকল কালো। আনন্দ উদযাপনের বারতা বয়ে মহালয়া আসে বংলায়। ছোটবেলায় শ্রাবন-ভাদ্রমাস শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমীতে শতনাম পড়তাম গোল হয়ে বসে। সেখানে সুখ সারির দ্বন্দ্ব কথায় ছিলো দুটো লাইন ‘আশ্বিনে অম্বিকা পূজা হর্ষ দেশে দেশে

read more

From Kailash to Downunder

5 November, 2020 - 01:35:55 PM

A seagull breaks the silence of the crisp cool morning and makes its way to the edge of the waters of the Pacific expecting a breakfast in the waiting. The first lone daffodil swaying in the gentle breeze is heralding the season that has “hope” etched in each of the flowers of the myriad colours that roll down our hills.

read more

কলকাতার ডায়েরি-শেষ পর্ব 

15 October, 2020 - 02:42:00 PM

২৪ শে জানুয়ারি/২০২০ আমার জীবনের একটি স্মরণীয় দিন, রোদে ঝলমল দারুন একটি দিন। সেদিন খুব সকালে ঘুম থেকে উঠে আমি এবং সালমা ব্রেকফাস্ট রুমে গিয়ে ব্রেকফাষ্ট করে আমরা দুজনেই শাড়ি পরে বাংলাওয়ার্ল্ড ওয়াইডের দ্বিতীয়দিনের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে রওনা দিয়েছিলাম। সালমা কিছুতেই শাড়ি পরতে পারছিলনা, ওর শাড়ি পরতে গিয়ে নাজেহাল অবস্থা দেখে আমার খুব মজা লাগছিল। আমি ওঁকে শাড়ি পরতে সাহায্য করেছিলাম । ও আমার বন্ধু এবং আমার খুব আদরের। কিছু কিছু সম্পর্ক হঠাৎ করে আপন হয়। সালমা আমার সেই সম্পর্কের একজন।

read more

মিশর রহস্য এবং করোনা আতঙ্ক-চতুর্থ পর্ব

10 October, 2020 - 01:05:00 PM

কায়রো যাওয়ার জন্য এয়ারপোর্টে সিকিউরিটি চেকের পর প্লেনে উঠতে উঠতে সন্ধ্যা পেরিয়ে গেল। ঘন্টাখানেকের প্লেন-যাত্রার পর কায়রো নামতে নামতে রাত আটটা। কায়রোতে নেমে কয়েকজন গেল ইজিপ্ট-এয়ার এর কাউন্টারে, ফেরার বুকিং কনফার্ম করতে। অবশেষে এসি বাসে উঠে ঘন্টাখানেকের যাত্রা'র পর হোটেল ওয়েসিস পৌঁছালাম রাত দশটায়।

read more

মিশর রহস্য এবং করোনা আতঙ্ক-তৃতীয় পর্ব

9 October, 2020 - 02:30:00 PM

প্রাচীন সেই মন্দিরে পৌছে মনটা ভরে গেল। প্রাচীন মন্দিরের অবস্থান ছিল অন্য আরেক দ্বীপে। ষাটের দশকে ইজিপশিয়ান গভর্মেন্ট আসওয়ান-এ নীল নদের ওপর এক ড্যাম বানাবার পরিকল্পনা করে। ড্যামের রিজার্ভারের জলের তলায় তলিয়ে যায় প্রাচীন এই পুরাকীর্তি। এরপর ইউনেস্কো'র সহযোগিতায় এবং ইটালী, ফ্রান্স, জার্মানি এবং আরো কিছু দেশের সহায়তায় প্রাচীন এই পুরাকীর্তি'র পুনরুত্থানের প্রচেষ্টা শুরু হয়। তলিয়ে যাওয়া দ্বীপের চারপাশে দেওয়া হয় বাঁধ। পাম্প করে জল বাইরে বের করে দেওয়া হয়। পরবর্তী দশ বছর ধরে চলে গোটা টেম্পল কমপ্লেক্স'কে দূরের আর এক উঁচু ভূখণ্ডে স্থানান্তরিত করা। অত্যন্ত দক্ষতার সাথে সুচারু ভাবে পাথরের পর পাথর, মূর্তির পর মূর্তি, পিলারের পর পিলার কেটে এনে নতুন জায়গায় বসানো হয়। সময় লাগে দশটি বছর। বর্তমানে মন্দির'টির অবস্থান উঁচু এই দ্বীপে। প্রাচীন এই মন্দিরের স্থান পরিবর্তন এক আর্কিটেকচারাল মিরাকল। বর্তমানে ইউনেস্কো'র World Heritage Site.

read more

"সেই যে আমার নানা রঙের দিনগুলি"

9 October, 2020 - 12:22:00 PM

শরতের সেই মিষ্টি রোদ সকালে বাড়ীর ব্যাকইয়ার্ডে বীচ চেয়ারে আধা শোওয়া হয়ে বাবার জীবন স্মৃতি, 'নিবেদন ইতি' পড়তে পড়তে কখন যে নিজেরই শৈশব, কৈশোর, যৌবনের আনন্দময় দিনগুলো মনের নীল আকাশটায় ডানা মেলে ভাসা লেজওয়ালা ঘুড়ির মতো উড়তে থাকলো ঠাহরেই আসলো না। জন্মের পর পরই সবাই যার 'টেঁসে' যাওয়ার আশংকা করছিলো সেই-ই এখন জীবন দিনান্তের দিকে গুটি গুটি পায়ে এগুচ্ছে। শৈশব-কৈশো্রে যেমন ছিল চঞ্চলতা-চপলতা ঠিক তেমনটিই ছিল যৌবনে উন্মাদনা।

read more